দৈনিক আমার হবিগঞ্জের সম্পাদকসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

105

নিউজ ডেস্কঃ বিভিন্ন সংবাদের কারণে মানহানির অভিযোগ এনে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদকসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুর রহমান বাদী হয়ে হবিগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত আমল-১ এ মামলাটি দায়ের করেন।

বিজ্ঞ আদালত মামলাটি তদন্তের জন্য পুলিশ ইনভেস্টিগেশন ব্যুরো (পিবিআই)কে দায়িত্ব প্রদানের আদেশ প্রদান করেন।

মামলার অভিযুক্তরা হলেন, দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক সুশান্ত দাশ গুপ্ত, নির্বাহী সম্পাদক নুরুজ্জামান মানিক, বার্তা সম্পাদক রায়হান উদ্দিন সুমন, রিপোর্টার কাকলী আক্তার, রিপোর্টার তারেক হাবিব ও মুদ্রাকর শোয়েব চৌধুরী।

মামলার আরজিতে বাদী উল্লেখ করেন, অভিযুক্ত দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক সুশান্ত দাশ গুপ্ত, নির্বাহী সম্পাদক নুরুজ্জামান মানিক ও বার্তা সম্পাদক রায়হান উদ্দিন সুমন তাদের পছন্দের লোকজনকে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের বিভিন্ন কমিটিতে নেওয়ার জন্য জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি বাদী সাইদুর রহমানকে চাপ প্রয়োগ করে। কিন্তু সাংগঠনিক নীতির বাহির গিয়ে কমিটি গঠনে অপারগতা প্রকাশ করলে অভিযুক্ত ৩ জন মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করে বাদীর মানহানি করার হুমকী প্রদান করে।

মামলায় বলা হয়, গত ২২ এপ্রিল আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় “বাড়িওয়ালার অভিযোগ ১১ মাস ধরে ঘর ভাড়া দিচ্ছে না হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সাইদুর” শিরোনামে সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করে।

২৫ এপ্রিল “ছাত্রলীগ সভাপতি সাইদুরের দৌড়ঝাপ দফারফার চেষ্টা” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করা হয়। বাড়িওয়ালা হিসেবে মোঃ শাহীন মিয়া ২৬ এপ্রিল একটি প্রতিবাদলিপি আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় প্রেরণ করেন। কিন্তু তা প্রকাশ করা হয়নি। এ সময় বাদী সাইদুর মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ না করার অনুরোধ জানালে আরো সংবাদ প্রকাশ করা হবে বলে হুমকী প্রদান করা হয়।

গত ২৪ জুলাই “হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি-সেক্রেটারীর কান্ড ॥ মাধবপুর ছাত্রলীগের সেক্রেটারীর পদ দিতে ২০ লাখ টাকা লেনদেন” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদে জাল দলিল ব্যবহার করা হয়েছে।

গত ২৬ জুলাই “পদ দেয়ার প্রলোভনে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি-সেক্রেটারীর আর্থিক কেলেঙ্কারী ফাসের পর আরেক কান্ড; মাধবপুর উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা মাহতাবুল আলম জাপ্পিকে পুলিশ পরিচয়ে হুমকী ॥ সেই কলার সাইদুর-মাহির লোক নাকি প্রতারক ?” শিরোনামে বাদীকে জড়িয়ে প্রকাশিত সংবাদে যে তথ্য উপাত্ত ছাড়া সম্পূর্ণ মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করায় বাদীর সামাজিক মর্যাদা ও সুনাম ক্ষুন্ন হয়েছে।

২৭ জুলাই “জাপ্পির বিরুদ্ধে মামলা করতে কেন্দ্রের নির্দেশ, সত্য না গুজব ? পদ বাচাতে কেন্দ্রীয় মহলে সাইদুর-মাহির দৌড়ঝাপ ॥ আতঙ্ক ছড়াচ্ছে অনুসারীরা” শিরোনামে ভিত্তিহীন, মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করা হয়।

১০ আগষ্ট “মুর্তিমান আতঙ্ক হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের স্থগিত কমিটির সাইদুর-মাহির জাপ্পির ২০ লাখ টাকার পর এবার রূপমের কাছ থেকে সাড়ে ৩ লাখ টাকা হাকানোর তথ্য ফাঁস” শিরোনামে ভিত্তিহীন ও সাক্ষ্য প্রমাণ বিবর্জিত সংবাদ প্রকাশ করা হয়।

১৪ আগষ্ট “হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের স্থগিত কমিটির আরেক নাম পদ দেয়ার প্রলোভনে অর্থ ছড়ানোর পর অপকর্ম ঢাকতে রূপমকে দিয়ে জোরপূর্বক সংবাদ সম্মেলন” শিরোনামে মিথ্যা একটি সংবাদ প্রকাশ করে। অভিযুক্ত শোয়েব চৌধুরীর বিরুদ্ধে মুদ্রাকর হিসেবে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা ছাপিয়ে বাদীর মানহানীর অভিযোগ আনা হয়েছে। উপরোক্ত তারিখে বিভিন্ন শিরোনামে সংবাদগুলো প্রকাশ করায় বাদী সাইদুর রহমানের মানহানী হয়। এতে ৫০০/৫০১/৫০২ ধারায় অভিযোগ এনে মানহানীর মামলা দায়ের করেন জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সাইদুর রহমান।

সূত্রঃ হবিগঞ্জ এক্সপ্রেস