যারা প্রকৃত মানুষ তারা সবসময়ই পাশে থাকে

148
সুসময়ে অনেকেই বন্ধু বটে হয়
অসময়ে হায় কেহ কারো নয়।
মানুষের জীবনের পরীক্ষা হয় দুঃসময়ের দিনগুলোতে। তখন যারা পাশে থাকে তারাই প্রকৃত মানুষ। সুসময়ে যারাসাময়িক সম্পর্ক গড়ে সেই সুদিনের মানুষগুলো নিতান্তই স্বার্থপর মাত্র।
সুদিনে অনেক বন্ধু জুটলেও দুর্দিনে তাদের পাওয়া যায় না। দুর্দিনে-দুঃসময়ে যেন কেউ কারাে নয়।
মানবজীবন সুখ-দুঃখের খেলা। সবার জীবন সবসময় সমানভাবে কাটে না। কখনাে সুখ, কখনাে দুঃখ, কখনাে হাসি,কখনাে কান্না মানবজীবনের নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। সুখের সময় আমাদের বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজনের কোনাে অভাব থাকে না।অনাত্মীয়রাও তখন আত্মীয় পরিচয় দিয়ে থাকে। কিন্ত দুর্দিন এলে সত্যিকারের আত্মীয় বন্ধু ছাড়া আর কারাে খোঁজখবর থাকে না। অনেক সময় মানুষ কঠিন কোনাে বিপদে পড়লে অতি আপনজনেরাও সরে দাঁড়ায়। শুধু তাই নয়, বিপদে পড়লে অনেকে শত্রুতা করে ক্ষতিও করার চেষ্টা করে। কিন্তু যারা এমনটি করে তারা মানুষ নয়। তাদের মধ্যে মানবতা বলে কিছু নেই। আমাদের সমাজের অধিকাংশ মানুষই হলাে সুযােগ সন্ধানী; স্বার্থপর । কারাে সুদিন দেখলে সবাই তার পিছে ঘুর ঘুর করে। তাকে আদর-সম্মান করে মাথায় তুলে রাখে। কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে যদি সে কোনাে বিপদে পড়ে, যদি তার অর্থ-সম্পদ ফুরিয়ে যায়, তখন আর কেউ তার দিকে ফিরেও তাকায় না। উঠতে বসতে দুধের মাছির মতাে যারা লেগে থাকত চারপাশে, তাদের কাউকেই আর খুঁজে পাওয়া যায় না। কেউ একবার ডেকে জিজ্ঞেস করে না।কীভাবে চলছে তার দিন। সবাই ভাবে কাছে গেলেই হয়তাে কোনাে ঝামেলায় জড়াতে হবে। সেজন্যই সবাই পাশ কাটিয়ে চলার চেষ্টা করে। কথায় বলে- অভাব যখন দরজায় এসে দাঁড়ায়, ভালােবাসা তখন জানালা দিয়ে পালায়। দুর্দিনে মানুষ যেমন অসহায় হয়ে পড়ে, তেমনি কেউ কারাে থাকে না, এমনকি স্ত্রী-পুত্রের মতাে আপনজনও তখন কটাক্ষ করে কথা বলে। অর্থাৎ সুদিনের বন্ধ সবাই। কিন্ত দুর্দিনে কেউ কারাে নয়। তবে যারা প্রকৃত বন্ধু, প্রকৃত মানুষ, তারা সুদিন, দুর্দিন – সবসময়ই মানুষের পাশে থাকে।
যারা বসন্তের কোকিল, তারাই সুদিনে থাকে, দুর্দিনে কেটে পড়ে। কিন্তু যারা প্রকৃত মানুষ তারা সবসময়ই পাশে থাকে।